1. admin@shopneralo.com : admin :
শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০২:৫১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে সেন্ট্রাল লিকুইড অক্সিজেন প্লান্টের উদ্বোধন ব্রাহ্মণবাড়িয়া রিপোর্টার্স ক্লাবে সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় করেন বিএমএসএফ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রতিবন্ধীদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ নিবন্ধন ছারা নৌযান চলতে পারবে না-ইউএনও এ এইচ ইরফান উদ্দিন আহমেদ প্রধানমন্ত্রীর নিকট ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রগতিশীল জোটের স্মারকলিপি প্রদান বিজয়নগরে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করেন ইউএনও এএইচ ইরফান উদ্দিন আহমেদ কুমিল্লা-৭ উপনির্বাচন: নৌকার মনোয়ন পেলেন ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত বিজয়নগর নৌকা দুর্ঘটনার স্থান পরিদর্শন করেন সাংসদ র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী বিজয়নগর উপজেলার সকলকে নিজের আপন মানুষ ভেবে কাজ করেছি ফুলেল শুভেচ্ছায় বিদায়ী জানান বিজয়নগর উপজেলা ১০ ইউনিয়ন পরিষদের সচিবরা

নবীনগরে প্রধান মন্ত্রীর ঘর এম পির মায়ের নামে দেওয়ায় সমালোচনার ঝড়

মো: তফসিরুল ইসলাম
  • সময় : মঙ্গলবার, ২৩ মার্চ, ২০২১
  • ৯৫ বার পঠিত
সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার গৃহহীন ও ভূমিহীনদের বাড়ি নির্মান প্রকল্প স্থানীয় সংসদ সদস্য‘র মায়ের নামে করায় তোলপাড় চলছে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কর্মকাণ্ড নিয়ে চলছে সমালোচনা। তবে উপজেলা প্রশাসন বলছে এই বিষয়ে কাউকে অবগত করেননি উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মিজানুর রহমান।
উপজেলার বড়িকান্দি ইউনিয়নের নুরজাহানপুর গ্রামে গৃহহীনদের পূর্ণবাসন প্রকল্পে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রকল্পটিতে ৯০টি গৃহহীন পরিবারের জন্য ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। প্রকল্পের কিছু কাজ এখনো সম্পূর্ণ হয়নি। এর সামনে খালি জায়গায় প্লাস্টিকের সাইন বোর্ডে প্রকল্পের নাম লিখা আছে। সেই সাইনবোর্ডে স্থানীয় সংসদ সদস্য এবাদুল করিম বুলবুলের মায়ের নামে ‘নুরজাহানপুর রাবেয়া খাতুন পল্লী’। এই ইউনিয়নের পাশের ইউনিয়ন সলিমগঞ্জের বাড়াইল গ্রামে সাংসদের গ্রামের বাড়ি। এতে স্থানীয়দের মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।নাম না প্রকাশ করার শর্তে স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি বলেন, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মিজানুর রহমান নবীনগর উপজেলায় প্রায় ১০বছর যাবত চাকরি করে আসছেন। নানান অনিয়মের অভিযোগ থাকলেও দীর্ঘদিন এক উপজেলায় কাজ করে আসছেন। সম্প্রতি সময়ে নির্মাণাধীন গুচ্ছগ্রামে প্রধানমন্ত্রী আশ্রয়ন প্রকল্পের ব্যক্তি নামে না থাকার কথা থাকলেও, নবীনগর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মিজানুর রহমান স্থানীয় সংসদ সদস্যকে খুশি করতে তার মায়ের নামে এই প্রকল্পের নামকরণ করেছেন।এই বিষয়ে নবীনগর উপজেলা অনলাইন অ্যাক্টিভিষ্ট ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক গৌরাঙ্গ দেবনাথ অপু বলেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এই বিষয়টি জানতে পেরেছি। আমি এই বিষয়ে পুরাপুরি অবগত নয়। তবে যদি এমনটি হয়ে থাকে তাহলে এমপির মায়ের নামে না করে স্থানীয় কোন মহীয়সী নারীর নামে প্রকল্পটি হলে যথাযথ হতো।বড়িকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার পারভেজ হারুত বলেন, পিআইও স্যার এর লোকজন এসে এখানে সাইনবোর্ডটা লাগিয়েছে। যেহেতু আমাদের সাংসদের মায়ের নামে সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে। সে ক্ষেত্রে আমরা তো এই বিষয়ে কিছু বলতে পারিনা।
প্রকল্পের নামকরণের বিষয়ে জানতে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মিজানুর রহমানের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।
এই বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ (নবীনগর) আসনের সাংসদ এবাদুল করিম বুলবুলের ব্যক্তিগত মুঠোফোন নাম্বারে কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি। পরে তার মুঠোফোনে ক্ষুদে বার্তা পাঠালেও এর কোন উত্তর দেননি সাংসদ এবাদুল করিম বুলবুল।তবে এই বিষয়ে নবীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) একরামুল সিদ্দিক বলেন, সংসদ সদস্য আমাকে ফোনে জানিয়েছেন, তার মায়ের নামে যে গুচ্ছ গ্রাম প্রকল্পের নামকরণ করা হয়েছে তিনি তা অবগত নন। মাননীয় এমপি মহোদয় ও ইউএনও’র সাথে পরামর্শ না করে কে বা কারা এই কাজটি করলো তা যাচাই করা হবে। এই বিষয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকেও জিজ্ঞাসা করা হবে। সাইন বোর্ডেটি সরিয়ে ফেলা হবে’।


সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব  সংরক্ষিত © ২০২০ স্বপ্নের আলো
Theme Customized BY Theme Park BD